স্ত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে মারলেন স্বামী।

0
246

স্ত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে মারলেন স্বামী
খুলনায় স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী খুকুমনি ওরফে মুনিকে (১৯) আগুনে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। রোববার (২৭ ফেব্রুয়ারি) নিহতের মা শিউলী বেগম বাদী হয়ে জামাতা মো. কামরুল ইসলাম ওরফে স্বাধীনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার জন্য অভিযোগ দিয়েছেন।

লিখিত অভিযোগ শুনানি শেষে খুলনা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম সোনাডাঙ্গা মডেল থানা পুলিশকে বাদীর আবেদনটি রেকর্ডের আদেশ দিয়েছেন।

ADVERTISEMENT

লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, সোনাডাঙ্গা থানাধীন আল ফারুক মাদরাসা রোডের মো. হাবিবুল্লাহর বাড়ির ভাড়া থাকেন শিউলী বেগম। ৫/৬ মাস পুর্বে মো. কামরুল ইসলাম ওরফে স্বাধীনের সাথে খুকুমনির বিয়ে হয়। মেয়ে ও জামাতা তার কাছেই থাকত। তিনি বাগেরহাটের স্মরনখোলায় অসুস্থ্য মাকে দেখতে যান। তার স্বামী কাজের তাগিদে যশোরের কেশবপুরে গিয়েছিলেন। সেই সুযোগে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি রাত ৩টার দিকে মো. কামরুল ইসলাম তার স্ত্রী খুকুমনিকে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন। টের পেয়ে বাড়ির মালিক ও তার স্ত্রী ওই ঘরের দরজা আঘাত করলে স্বাধীন খুলে দেয়। আগুনের বিষয়ে সে তাৎক্ষণিক বাড়ির মালিক ও তার স্ত্রীকে জানায় চা বানাতে গিয়ে খুকুমনির গায়ে আগুন লেগেছে।

পরে দ্রুত অগ্নিদগ্ধ খুকুমনিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে তার মা ও বাবা খুলনায় এসে পরদিন চিকিৎসকদের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করেন। অবশেষে ২১ ফেব্রুয়ারি বিকেলে শরীরের ৭০ ভাগ পোড়া নিয়ে মারা যান গৃহবধূ খুকুমনি। মৃত্যুর পুর্বে এক ভিডিও বার্তায় তার মৃত্যুর জন্য স্বামী মো. কামরুল ইসলাম ওরফে স্বাধীনকে দায়ী করেন। ঢাকায় ময়নাতদন্ত শেষে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি স্মরনখোলায় দাফন করা হয়েছে।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোটে মাসুদুর রহমান জানান, রোববার দণ্ডবিধির ৩০২ ও ৩৪ ধারার লিখিত অভিযোগ বিজ্ঞ নালিশি আদালতে দাখিল করা হয়। শুনানি শেষে বিজ্ঞ আদালত বাদীর এ আবেদনটি সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় রেকর্ডের আদেশ দিয়েছেন।

মোহাম্মদ মিলন/আরআই

BÌNH LUẬN

Please enter your comment!
Please enter your name here